বসুন্ধরা সিটিতে Part Time (পার্ট টাইম) – [৩৮০০০ সেলারি] – এইচএসসি(Hsc/ এসএসসি(Ssc) স্টুডেন্ট Circular New

লক্ষ্যদিনঃ মাত্র ৭ ঘন্টা আগে শিরোনামের জবটিতে আবেদন গ্রহন সমাপ্ত হয়েছে। তবে এর চেয়ে ভাল এবং সহজে প্রাপ্তিযোগ্য আরেকটি সার্কুলার নিচেই আছে দেখু।।

চাকরি পাওয়া আসলে এমন একটা ব্যপার যেটা আপনি ইগনোর করতে চাইলেও পারবেন না। শতবার চেস্টা করেও যারা চাকরি পায়না তারা জানে চাকরি জিনিসটা কি। আবার যারা ২/১ বার চেস্টা করেই যেকোন একটা চাকরির ব্যবস্থা করে ফেলে তারা চাকরি জিনিসটা কি সেটা ক্লিয়ারলি বুঝতে পারেনা।

যেমন শিরোনামে উল্লেখিত যে জবটির কথা উল্লেখ করেছি সেটা পাবার জন্য ক্যন্ডিডেটদের যে ভয়ংকর প্রতিযোগিতাটা দেখেছি সেটা বালার মতনা। একমাত্র যিনি ব্যপারটা সামনে দাঁড়িয়ে থেকে লক্ষ্য করেছে তিনি ছাডা আর কেউ কল্পনাও করতে পারবেন না যে ঘটনাটা কি ঘটেছিল।

অস্থির জনসমুদ্র ছিল। এই জনসমুদ্রের প্রধান কারন ছিল বেতনের আকার। ৩৮০০০ বেতন মখের কথানা। অনেকে বলবেন চারটি খানি কথা না।

কিছুদিন আগে স্থানিয় একটা ব্যাংকের জবের জন্য সার্কুলার হয়েছিল। সিটের সংখ্যা ছিল ৬৮৭ টি। ৩ টি বিভাগের আওতায় হয়েছিল এই নিয়োগ। ১ বিভাগে দেখা গেল লোকজন নেই খুব একটা। গিয়ে দেখি পদের সংখ্যা ৭৯ টি। কিন্তু আবেদনকারিদের ভিড় চোখে পড়লনা। এগিয়ে গিয়ে ডিপার্টমেন্টের হেড (যিনি আমার বাল্যকালের বন্ধু) কে জিজ্ঞেস করলাম ঘটনাটা কি? বন্ধু আমার হাসিমুখে জবাব দিল, দোস্ত এই পদের জন্য অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়েছে ২৩ বছর তাই ক্যন্ডিডেট নেই। আবার জিজ্ঞেস করলাম, তাহলে কি কোটা পুর্ন হবেনা? আবার জবাব দিল বন্ধুটা, হবে কিন্তু একটু লেট হবে এই আর কি।

অন্যদিকে সেদিন একটা শপিং সেন্টারে গিয়ে দেখি বেশ কিছু দোকানের সামনে ইয়া লম্বা লাইন। এগিয়ে গিয়ে দেখলাম সবার হাতে একটা করে কাগজ। একজনকে জিজ্ঞেস করতেই আসল কথাটা বেরিয়ে এল। জানা গেল সেই দোকানে নাকি সেলসে লোক নিচ্ছে, তাই তারা ইন্টারভিউ দেয়ার জন্য লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমি জিজ্ঞের করলাম, কতদিন এভাবে ইন্টারভিউ দিবেন? লোকটি জানালো, এটাই তার প্রথম ইন্টারভিউ এবং হোপফুল্লি তিনি নাকি জবটি পেয়ে যাবেন। কারন এদের নাকি ৬৫ টি ব্র্যাঞ্চের দোকান আছে এবং এত লোক নাকি তারা নিবেন যে, যারা লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন, তাদের সবাইকে কাজ দেয়ার পরেও সিট খালি পড়ে থাকবে। আমি জানতে চাইলাম বেতন কত। লোকটি জানালেন ৭৮০০। বুঝতে পারলাম দেশের চাকরির বাজারে আকাল আসলে নেই। যে কেউ চাইলেই যেকোন একটা জব এ ডুকে যেতে পারেন ইজিলি কিন্তু বেতন খুব কম। এই যুগে ৭৮০০ টাকায় কি আর হয়! কিন্তু যারা এই অল্প বেতনের চাকরির জন্য লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে তারা যদি এই জব না করে তাহলে হয়তো সেই টাকাটাও তার পকেটে থাকবেনা। হিসেবটা খুবই সহজ এখানে এবং সরল অংকের মত। আপনি যদি বাপের টাকায় চলতে চান চলুন, আর যদি বাপের টাকায় চলতে না চান, তাহলে ৭৮০০ টাকার কাজ আপনার জন্য রেডি। দেশের অর্থনিতির অবস্থা আসলেই অনেক উপরে উঠে গেছে। কারন আগে বেকার ছেলেপেলেরা রাস্তায় ঘুরে বেড়াতো আর টাকার জন্য হা-হোতাশ করত।  আর এখন বেশি টাকা ইনকাম করতে না পারলেও, হা-হোতাশ দূর করার মত ব্যবস্থার চাকরি আপনি চাইলেই করতে পারেন। ব্যপারটা আমার কাছে আলাদিনের চেরাগের মত লাগে। কিছুদিন আগে দেখেন সিএনজি ড্রাইভাররা প্যসেঞ্জারদের সাথে কি পরিমান খারাপ ব্যবহার করত। আর মিটারেতো যাওয়ার কথা বললেই পাপ হত। আর এখন উবার আসার পর থেকে সিএনজি ড্রাইভাররা ডেকে ডেকা প্যসেঞ্জার জোগাড় করে। মিটারে যাবেন কিনা জিজ্ঞেস করলে বলে যে, মিটারে না শুধু সেন্টিমিটারেও যাব।

প্রযুক্তি যেমন সব ক্ষেত্রেই বেশ ভাল ইম্পেক্ট রেখেছে, চাকরি ক্ষেত্রেও ইম্পেক্টটা ভয়াবহ। প্রযুক্তির কল্যানে ফেসবুকের মাধ্যমে কোন চিপায় চাপায় লোক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হবার সাথে সাথে ছড়িয়ে পড়ে সবার মাঝে। শুধু তাই নয়, চাকরির সহজ কোন বিজ্ঞপ্তি থাকলে সেটা বন্ধুদের কাছে শেয়ারের মাধ্যমে ডাইরেক্ট চলে যায় আপনার পকেটে। ব্যপারটা ধিরে ধিরে এমন হয়ে যাচ্ছে যে, মন মাঝিরে তোর বইঠা নেড়ে, আমি আর বইতে পারলাম না। মানে হল, এত এত চাকরির অফার এখন আমার আপনার এন্ড্রয়েডের ভেতরে থাকে যে, কোনটা ছেডে কোনটা নিবেন, সেটার চাপ সহ্য করার জন্য আপনাকে অস্থির হয়ে যেতে হয়। আপনি যেন আর এত জবের অফারের চাপ আর বইতে পারছেন না।

তেলে জলে কখনো মিশ খায়না। তাই যদি আপনি ভেবে থাকেন যে চাকরি পাওয়া খুব কঠিন তাহলে আপনি হলে তেল টাইপের মানুষ। আর অন্যদিকে চাকরি হল জল টাইপের পদার্থ। তাই জলের মত সহজে যদি চাকরি পেতেই চান, তাহলে আপনার নিজেকেও জলের মত হতে হবে। তাহলেই আপনি জল হয়ে চাকরি নামক জলে মিশে যেতে পারবেন। তেল হয়ে যদি বেশি তেলতেলে ভাব বজায় রাখেন তাহলে আপনি আজিবন সেই জলের উপর ভেসে বেড়াবেন, মিশতে পারবেন। নিজেকে জলের মত সহজ সচ্ছ পরিস্কার আর উপাদেয় করে তুলুন। চাকরি ছিল, আছে, থাকবে চিরকাল (তবে তা জলের মত মানুষের জন্য)

প্রশ্ন থাকলে লিখুন
 

Author: admin

17 thoughts on “বসুন্ধরা সিটিতে Part Time (পার্ট টাইম) – [৩৮০০০ সেলারি] – এইচএসসি(Hsc/ এসএসসি(Ssc) স্টুডেন্ট Circular New”

  1. আমার এই চাকরিটা খুব প্রয়োজন আমি বেকার বসে আছি আমার বাসায় কাজ করার মতো কেউ নেই আর তাই আমাদের সংসার বিপদের মুখে যদি একটা চাকরি দিতে পারেন আমাকে তবে আমি কৃতঙ্গ থাকবো আমার মোবাইল নাম্বার (01982959531)

  2. আমার একটা চাকরির প্রজন বর্তমানে বেকার বসে আছি
    আমার মোবাইল নম্বর 01975333916

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.